করোনা পরিস্থিতিতে ‘কৃষি মহাপরিকল্পনা’ প্রণয়নের আহবান বাহাউদ্দিন নাছিমের

সোমবার, ১৮ মে ২০২০ | ৪:২৮ পূর্বাহ্ণ | 500 বার

করোনা পরিস্থিতিতে ‘কৃষি মহাপরিকল্পনা’ প্রণয়নের আহবান বাহাউদ্দিন নাছিমের

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) পরিস্থিতিতে কৃষি সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়সহ সকল কৃষি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহ এবং সরকারী ও বেসরকারী কৃষি গবেষণামূলক প্রতিষ্ঠান গুলো যৌথভাবে “কৃষি মহাপরিকল্পনা”প্রনয়ন করে সরকারকে সহযোগিতার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ পরিষদের মহাসচিব কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম।

বৃহস্পতিবার ( ১৪ মে) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এ আহ্বান জানান।বিবৃতিতে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, “কোভিড-১৯”নামক করোনাভাইরাসের ভয়াল আক্রমণে আধুনিক উন্নত দেশের ন্যায় বাংলাদেশের মানুষও বৈশ্বিক মহামারীতে আক্রান্ত। আমেরিকা, ইউরোপসহ বিশ্বের অনেক দেশের রাষ্ট্রনায়ক যখন হিমশিম খাচ্ছে, সেখানে বাংলাদেশের গর্বের প্রধানমন্ত্রী, জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা “মানবতার মা”জননেত্রী শেখ হাসিনা চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী, সশস্ত্রবাহিনী, আইনশৃঙ্খলাকর্মী, কৃষিবিদ, প্রকৌশলী, রাজনৈতিক নেতাকর্মী, মিডিয়াবন্ধুসহ সকল পেশাজীবি, প্রশাসনের কর্মকর্তা ও কর্মচারী, নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি এবং সকল শ্রেনী-পেশার জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে করোনাভাইরাস সংক্রমণ থেকে দেশ ও জাতিকে সুরক্ষা দেওয়ার বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। এজন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীসহ সম্মুখ সারিতে থেকে যে সকল বীর করোনা যোদ্ধা হিসেবে জনগণের স্বাস্থ্য সেবা, সুরক্ষা, খাদ্য উৎপাদন ও সরবরাহসহ সকল সেবা কাজে নিজেকে উৎসর্গ করেছেন তাদের জানাই সশ্রদ্ধ সালাম।

webnewsdesign.com

জাতি এই বীরদের শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ রাখবে।বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, করোনা বৈশ্বিক মহামারির সময় শেখ হাসিনা সরকার স্বাস্থ্য সেবার সাথে সাথে কৃষিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে নিজের দেশের জনগণের জন্য খাদ্য সরবরাহ শুধু নিশ্চিত করতে নয়, খাদ্য সংকটের দেশেও সহযোগিতার লক্ষ্যে কৃষিতে প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা ঘোষণা করেছেন এবং দেশের এক ইঞ্চি জায়গাও অনাবাদি না রাখার ঘোষণা দিয়েছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে এই বৈশ্বিক মহামারির সময় বাংলার কৃষকগণ যেভাবে খাদ্যশস্য উৎপাদন অব্যাহত রেখেছেন তা শুধু গর্বেরই বিষয় নয়, বিস্ময়করও বটে। কৃষিতে তারাই প্রকৃত সম্মুখ যোদ্ধা। তাদের জানাই সশ্রদ্ধ সালাম ।

ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয় ও ঝুকির মধ্যে থেকেও ন্যূনতম সুরক্ষা সামগ্রী ছাড়া একই ভাবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে অতীতের ন্যায় কৃষিবিদগণ খাদ্য উৎপাদন অব্যাহত রেখে অর্থনীতিকে সচল রাখতে কৃষকের পাশে থেকে সহযোদ্ধা হিসাবে সরকারের গৃহীত কর্মসূচী বাস্তবায়ন করে যাচ্ছেন। এই পেশাদারিত্ব মনোভাবের জন্য বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ পরিষদের পক্ষ থেকে সংগ্রামী কৃষিবিদদের জানাই আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ।বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ পরিষদের মহাসচিব কৃষিবিদ বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, এ বৈশ্বিক মহামারির ক্রান্তিলগ্নের সময় যে সকল বরেণ্য কৃষিবিদ মৃত্যু বরণ করেছেন আমি তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। তাদের পরিবারের প্রতি জানাই সমবেদনা। এছাড়া অনেক কৃষিবিদ ও তাঁর পরিবার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন তাঁদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করছি। “বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ পরিষদ” অতীতের ন্যায় আপনাদের যে কোনো সেবা প্রদানে অঙ্গীকারবদ্ধ।তিনি বলেন, “কোভিড-১৯” করোনা মহামারী ভাইরাসজনিত রোগের সংক্রমণ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে ও বিদ্যমান পরিস্থিতি মোকাবেলায় স্বাস্থ্য ও কৃষি একে অপরের সাথে যোগসূত্র স্থাপন করে চিকিৎসক ও কৃষিবিদ যৌথ সমন্বয়ে নিবিড়ভাবে গবেষণা কার্যক্রম গ্রহণপূর্বক “One Health”সার্ভিস (স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও খাদ্য পুষ্টি) ধারণা বাস্তবায়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে আহ্বান জানাচ্ছি।মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা ”দেশের এক ইঞ্চি জায়গাও অনাবাদি না রাখা”এটিকে সামাজিক আন্দোলনে পরিণত করার জন্য সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি বেসরকারিভাবে সকল কৃষিবিদ ও কৃষিশিক্ষায় অধ্যয়নরত সকল আগামী দিনের কৃষিবিদদের আহ্বান জানাচ্ছি। সেই সাথে কৃষি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় গুলিকে (কৃষি মন্ত্রণালয় এবং মৎস্য ও প্রানী সম্পদ মন্ত্রণালয়) নবীন কৃষিবিদদের সামগ্রিক কৃষি উৎপাদন প্রক্রিয়ায় সংশ্লিষ্ট করার আহ্বান জানাচ্ছি।

তিনি আরো বলেন, ফসল উৎপাদন যাতে ব্যহত না হয় সেজন্য গুণগত মানসম্পন্ন বীজ উৎপাদন ও বিপণন এবং পুষ্টি চাহিদা নিবারণের জন্য দুধ, ডিম, মাছ ও মাংস ইত্যাদি পর্যাপ্ত উৎপাদন বৃদ্ধি নিশ্চিত করতে সরকারী উদ্যোগের পাশাপাশি বেসরকারি উদ্যোক্তাদের আরও বেশি অবদান রাখার অনুরোধ জানাচ্ছি। যেন সরকার অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কৃষিকে গুরুত্ব দিয়ে আগামীদিনের একটি জনকল্যাণকর বাজেট প্রণয়ন করতে পারে।“বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ পরিষদ”ও “কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ”এর সকল কৃষিবিদ ভাই ও বোনেরা অতীতের ন্যায় যে কোন ক্রান্তিকালে কৃষকরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার সাথে ছিলেন, বর্তমানেও আছেন এবং ভবিষ্যতেও থাকবেন। সেই সাথে কৃচ্ছতা সাধনে ব্যয় কমিয়ে দুঃস্থ ও পীড়িত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য সকল কৃষিবিদদেরকে উদাত্ত আহ্বান জানান তিনি।একই সাথে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ ইতোমধ্যে কৃষি ও কৃষকের কল্যাণে ১৪ দফার পরিকল্পনা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে উপস্থাপন করার কারণে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়েছে।পরিশেষে সবাইকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলে নিজেকে সুরক্ষা রাখার অনুরোধ করেন তিনি।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

Powered by Facebook Comments

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com