ছাতকে প্রশাসনিক সেবার মান নিয়ে জেলা প্রশাসকের ক্ষোভ

শনিবার, ১৫ জুন ২০১৯ | ১২:১৬ অপরাহ্ণ | 755 বার

ছাতকে প্রশাসনিক সেবার মান নিয়ে জেলা প্রশাসকের ক্ষোভ

সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলায় প্রশাসনিক সেবার মান নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ।

বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলা সম্মেলন কক্ষে উন্নয়ন ও আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, সুনামগঞ্জ জেলার মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা ছাতক কিন্তু এখানের প্রশাসনিক সেবার মান সন্তোষজনক নয়।

এ বিষয়ে সিলেট বিভাগীয় কমিশনারও অবগত বলে জানিয়েছেন তিনি।
উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুর রহমানের সভাপতিত্বে ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবেদা আফসারীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন সুনামগঞ্জের সহকারী পুলিশ সুপার ছাতক সার্কেল বিল্লাল আহমদ, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান লিপি বেগম,উপজেলা কৃষি অফিসার তৌফিক হোসেন খান, উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মাসুদ জামান খান, উপজেলা প্রকৌশলী আবুল মনসুর মিয়া, ইউআরসি ইন্সট্রাকটর মোস্তফা আহসান হাবিব।
ছাতক থানার ওসি (অপারেশন) গোলাম মোস্তফা, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক সাহাব উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা আবরু মিয়া তালুকদার, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক সৈয়দ আহমদ, ছাতক প্রেস ক্লাবের সভাপতি সৈয়দ হারুন-অর রশীদ, ইউপি চেয়ারম্যান গয়াছ আহমদ, আখলাকুর রহমান, আবুল হাসনাত, সাইফুল ইসলাম, মুরাদ হোসেন।

মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার আলহাজ্ব আব্দুস সামাদ, আনোয়ার রহমান তোতা মিয়া, আওয়ামী লীগ নেতা সামছুজ্জামান রাজা, মঞ্জুর আলম, সুনু মিয়া মেম্বার, নিশি কান্ত সিংহ প্রমুখ।

এ সময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ বলেন, জনদুর্ভোগ লাঘবে প্রতি বুধবার উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে গণশুনানী অনুষ্ঠিত হবে। এ লক্ষে পরিষদ চত্ত্বরে নির্মাণ করা হবে একটি সেবা শেড। উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সরকারি ভূমিতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ, নদীতে ভাসমান অবৈধ ওয়াসিং মেশিন ও ড্রেজার মেশিনে বালু উত্তোলন বন্ধে দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

হাদা-পাণ্ডব এলাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের অরক্ষিত গণকবর সংরক্ষণে নেওয়া হবে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা। নদীপথে সব ধরনের অবৈধ কার্যক্রম কঠোর হস্থে দমন করার কথাও বলেন তিনি।

এ সময় প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম, পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা চৌধুরী রাজিব মোস্তফা, বাউবির উপ পরিচালক সিদ্দিকুর রহমান, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা পুলিন চন্দ্র রায়, প্রশানিক কর্মকর্তা অরবিন্দু দাস, ছাতক টেকনিকেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের চিপ ইন্সট্রাকটর সামিউল আলম খন্দকার, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মিজানুর রহমান, সমাজ সেবা কর্মকর্তা শফিউল হক, লাফার্জ কর্মকর্তা হাবিবা রহমান, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা গোপিাল চন্দ্র দাস, একটি বাড়ি একটি খামারের জুলকার নাইন, জনস্বাস্থ্য কার্যালয়ের ফারুক আহমদ, আনসার-ভিডিপির প্রশিক্ষক মঈন উদ্দিন, ক্রিড়া সংস্থার সেক্রেটারি সৈয়দ লাল মিয়া, ভারপ্রাপ্ত ইউপি চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেনসহ উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারী, জনপ্রতিনিধি ও মুক্তিযোদ্ধাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সূত্রঃ কালের কন্ঠ

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

Powered by Facebook Comments

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com