জীবন থেকে নেয়াঃ ছাত্র রাজনীতির উদ্দেশ্যে

রবিবার, ০৪ আগস্ট ২০১৯ | ১০:২৩ পূর্বাহ্ণ | 56 বার

জীবন থেকে নেয়াঃ ছাত্র রাজনীতির উদ্দেশ্যে

পুরোটা পড়ার সময় নেই!!

বৈচিত্র্যের জন্যই পৃথিবী এত সুন্দর। শীতের জমাট কুয়াশা আছে বলেই ধূসর মেঘ কেটে রূপালী আকাশে সূর্যের ঝলমলে হাসি আমাদের প্রাণ ছুঁয়ে যায়। কিন্তু একটি ক্ষেত্রে এই বৈচিত্র্য আমাদের কারো কাম্য নয়- আমরা কেউ ব্যর্থ হতে চাই না! পৃথিবীতে সাড়ে সাতশো কোটির বেশি মানুষ আমরা সবাই চাই সফল হতে।

কিন্তু চাওয়া এবং পাওয়ার মাঝে একটা পাহাড়সম দেয়াল আছে, সেই দেয়াল পেরিয়ে বিজয় নিশান উড়িয়ে দিতে পারে এমন মানুষ কমই আছে। সেজন্যই ক্লাসে প্রথম হয় একজনই, বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হয় একটি দলই, পাহাড়ের চূড়ায় পৌঁছাতে পারে খুব অল্প কিছু মানুষ। বাকিদের সারাটি জীবন কেটে যায় সাফল্যের মরীচিকার সন্ধানে, নাগালের বাইরে থেকে যায় সোনার হরিণ।

কেউ বলে সবই ভাগ্যের খেলা, কেউ দোহাই দেয় মেধা, সুযোগ, সম্ভাবনার। আসলেই কি তাই? একটু লক্ষ্য করলে দেখতে পাবে একজন সফল আর ব্যর্থ মানুষের চিন্তা-ভাবনা, অভ্যাস, কাজের ধরণে ছোট ছোট অনেকগুলো পার্থক্য রয়েছে। দিনের শেষে এই ক্ষুদ্র পার্থক্যগুলোই গড়ে দেয় যত ব্যবধান।

আনন্দ: পরিশ্রমে vs বিশ্রামে

পড়ালেখা করতে কি তোমার ভাল লাগে? আমার একটুও ভাল লাগে না! কিন্তু একাডেমিক পড়ালেখার বাইরে এমন অনেক জিনিস আছে যেগুলোর পেছনে আমি ঘণ্টার পর ঘণ্টা কাজে লেগে থাকতে পারি এবং আমি জানি এগুলো আমাকে জীবনে এগিয়ে যেতে অনেক সাহায্য করবে। সাকিব আল হাসান পড়ালেখায় ভাল ছিলেন কিনা সেটা কেউ দেখতে যাবে না, তাঁর ধ্যানজ্ঞান ক্রিকেট জুড়ে সেটাতে তিনি বিশ্বসেরা।

সফল মানুষদের একটা কিছু ধ্যানজ্ঞান থাকে যেটার পিছে তারা নাওয়া-খাওয়া ভুলে লেগে থাকতে পারেন। ব্যর্থ মানুষদের জীবন কাটে নিজের কাজকে ঘৃণা করে। তাদের না আছে কোন দক্ষতা, না আছে কোন গঠনমূলক কাজের প্রতি ভালবাসা। তাদের ধ্যানজ্ঞান থাকে রাজ্যের আনপ্রোডাক্টিভ সব কাজে- খেলা দেখা, সিরিজ দেখা, অপ্রয়োজনীয়ভাবে ঘুমানো, প্রয়োজনের চেয়ে বেশি খাওয়া, আড্ডা দেওয়া, ফেসবুকিং করা এসব।

পরিশ্রম না করে তুমি জীবনে কোনদিন বড় হতে পারবে না। আর একটি কাজ করে যদি আনন্দ না পাও, তবে এরচেয়ে বিরক্তিকর আর কিছু হয়না। তাই ভাল লাগার জায়গাটি খুঁজে নাও, যেখানে দিনরাত এক করে কাজ করতেও কোন আপত্তি থাকবে না তোমার।

Goal vs গণ্ডগোল

জীবনটা একটা অভিযান, পাহাড়ের চূড়ায় ওঠার মতো। তোমার প্রতিদিনের কাজগুলো ঠিক করে দেবে তুমি কি চূড়ায় ওঠার পথে একধাপ এগিয়ে গেলে নাকি আরো পিছিয়ে পড়লে। ব্যর্থ মানুষদের জীবনের একটি বড় অংশ কেটে যায় অন্যদের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে গিয়ে। প্রতিদিন আড্ডা দিতে হবে, সোশাল মিডিয়ায় তৎপর হতে হবে, হ্যাংআউটে যেতে হবে- কারণ তা নাহলে বন্ধুমহলে “cool” হওয়া যায় না! এই “cool” সাজার চেষ্টাটি যে কতোটা বোকামি সেটা কি বুঝতে পারছো?

যাদেরকে impress করার চেষ্টা করছো প্রাণপণে, এই মানুষগুলো পাঁচ বছর পর তোমার জীবনে থাকবে না। ক্লাসের কোণায় বসে বই পড়ুয়া চুপচাপ যেই ছেলেটিকে নিয়ে হাসাহাসি করছো, দশ বছর পর তোমাকে সেই ছেলেটির কোম্পানিতে চাকরি করতে হতে পারে। কারণ সেই ছেলেটি বন্ধুবান্ধব, খেলাধুলা এসবের পিছে অনর্থক মেতে নেই, তার সব ধ্যানজ্ঞান জীবনে বড় হওয়ার, নিজের লক্ষ্যকে ছোঁয়ার।

সফল মানুষদের সবসময় এমন সুদূর-প্রসারী লক্ষ্য থাকে, সাধারণ মানুষের কাছে তা অনেক সময় পাগলামি মনে হয়। তাই ইতিহাস পড়লে দেখবে এই পাগলাটে মানুষগুলোই পৃথিবী বদলে দিয়েছে, যুগের সাথে ‘তাল মিলিয়ে চলা’ লক্ষ্যহীন মানুষগুলোর না আছে কোন অর্জন, না কোন অবদান। কেউ মনে রাখেনি তাদের কথা।

If you want to be better than everybody, you have to make sure you’re working harder than anybody else.

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

কৃষি মন্ত্রনালয়ে ১১-২০তম গ্রেডে বিভিন্ন পদে নিয়োগ
শম্ভুগঞ্জ এর মোমেনশাহী এটিআই এ প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পূনর্মিলনী অনুষ্ঠিত
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে ১০৮১ জন নিয়োগ
উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তা পদে বাছাই পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ