সিলেটে ‘বারি’র আঞ্চলিক গবেষণা-সম্প্রসারণ পর্যালোচনা ও কর্মসূচী প্রনয়ণ কর্মশালা ২০২০ অনুষ্ঠিত

সোমবার, ২৯ জুন ২০২০ | ৯:৩৬ পূর্বাহ্ণ | 108 বার

সিলেটে ‘বারি’র আঞ্চলিক গবেষণা-সম্প্রসারণ পর্যালোচনা ও কর্মসূচী প্রনয়ণ কর্মশালা ২০২০ অনুষ্ঠিত

সরেজমিন গবেষণা বিভাগ, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট সিলেট আয়োজিত সিলেট অঞ্চলের ‘‘আঞ্চলিক গবেষণা-সম্প্রসারণ পর্যালোচনা ও কর্মসূচী প্রণয়ন কর্মশালা’’ ২০২০, ২৮ জুন রোববার দুপুরে নগরীর চন্ডীপুলস্থ এসআরডিআই সিলেট এর সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়।

আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা কেন্দ্র আকবরপুর মৌলভীবাজার এর মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড: মো: রফি উদ্দিন এর সভাপতিত্বে কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সিলেট অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক শ্রী নিবাস দেব নাথ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সাইট্রাস গবেষণা কেন্দ্র জৈন্তাপরি এর প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকতা ড: মশিউর রহমান শামীম, আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা কেন্দ্র আকবরপুর মৌলভীবাজার এর প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকতা ড: মো: আলমগীর হোসেন।

কর্মশালায় সিলেট অঞ্চলের কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ ৩৫ জন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, কৃষি তথ্য সার্ভিসের কর্মকর্তা, বেসরকারী এনজিও, সাংবাদিক প্রতিনিধিসহ উপকারভোগী কৃষকগণ উপস্থিত ছিলেন।

এতে স্বাগত বক্তব্য ও সিলেট অঞ্চল প্রেক্ষিত প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ওএফআরডি, বারি সিলেট এর প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড: মাহমুদুল ইসলাম নজরুল। কর্মশালায় প্রধান অতিথি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সিলেট অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক শ্রী নিবাস দেব নাথ বলেন, সিলেট অঞ্চলের পতিত জমি চাষের আওতায় এনে শস্যের নিবিড়তা বাড়ানোর কৌশল উদ্ভাবন করতে হবে। অঞ্চলভিত্তিক কৃষি ফসল উৎপাদন নিশ্চিত করতে হবে। প্রকৃতিকে প্রকৃতির মতো থাকতে দিতে হবে, নতুবা প্রকৃতি দ্বিগুণহারে প্রতিশোধ নিবে। হাওর অঞ্চলে সমন্বিত কৃষি ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করার আহ্বান করেন।

উক্ত কর্মশালায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞানীবৃন্দ বিগত বছরের কৃষি গবেষণার ফলাফল উপস্থাপন করেন যার অনেকগুলি জাত ও অন্যান্য প্রযুক্তি সিলেট অঞ্চলের পতিত জমির ব্যবহার ও ফসল চাষের নিবিড়তা বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে বলে বক্তারা মত প্রকাশ করেন। মাঠে বিদ্যমান সমস্যাদি কৃষির অগ্রগতি ও উন্নয়নের জন্য সম্ভাব্য সমাধানের নিমিত্তে বিজ্ঞানীবৃন্দ কর্তৃক গৃহীত নতুন গবেষণা কর্মসূচী প্রস্তাব আকারে আলোচনা হয়। কৃষি গবেষণা, মৃত্তিকা গবেষণা, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, কৃষি উন্নয়নসহ সকল প্রতিষ্ঠানের কর্মকান্ডের ফলাফলের বিবরণীসহ উপস্থাপিত কৃষির টেকসই উন্নয়নের সাথে জড়িত প্রত্যেক সেশনের শেষে সকল অংশগ্রহনকারীগণ উন্মুক্ত আলোচনা-সমালোচনায় অংশ নেন।

বক্তারা বলেন, কৃষির সামগ্রিক উন্নয়নে কৃষি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সমূহের উদ্ভাবিত টেকসই প্রযুক্তি কৃষক পর্যায়ে সারাদেশে সম্প্রসারনের জন্য কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ নিয়োজিত এবং মান সম্পন্ন বীজ উৎপাদন ও বিতরণের জন্য একমাত্র সরকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিএডিসি জড়িত, তাই এই তিন বিভাগের সামগ্রিক সমন্বয়, লিংকেজ বৃদ্ধি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এ ধরনের কর্মশালা নি:সন্দেহে কৃষির অগ্রযাত্রাকে এগিয়ে নেবে বলে উপস্থিত বিজ্ঞানী ও কর্মকর্তাগণ মনে করেন।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

Powered by Facebook Comments

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com