সেক্স ফেরোমোন ফাঁদ ব্যবহার করে সফল দক্ষিণ সুরমা কৃষক নাদির আহমদ

রবিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২:৫৯ অপরাহ্ণ | 673 বার

সেক্স ফেরোমোন ফাঁদ ব্যবহার করে সফল দক্ষিণ সুরমা কৃষক নাদির আহমদ

সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলার সিলাম ইউনিয়নের ডুংশ্রী গ্রামের মৃত রইছ আলীর ছেলে নাদির আহমদ একজন তরুন উদ্যোক্তা কৃষক। বছরব্যাপী বিভিন্ন প্রকার সবজি চাষ করে ব্যাপক সফলতা পেয়েছেন।

বাবার মৃত্যুর পর মা ও ভাইবোনদের স্বপ্ন পূরণের আশায় সংসারের হাল ধরতে সফলতাকে তাড়া করে ২০১৬ সালে পাড়ি জমান সুদূর মালেশিয়ায়। কিন্তু তার স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যায়। অবশেষে মরিচীকার পেছনে না দৌড়িয়ে ২০১৭ সালে দেশে ফিরে আসেন নাদির আহমদ।

হতাশাগ্রস্থ নাদির আহমদের জীবনে আশার আলো নিয়ে আসেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপসহকারী কৃষি অফিসার হাফিজ কাওছার আহমদ। কৃষিও যে স্বপ্নপূরণের মাধ্যম হতে পারে নাদির আহমদকে সে স্বপ্ন দেখান তিনি। তার বাড়ির আশপাশের পতিত জমিকে চাষাবাদের আওতায় আনার জন্য উদ্বুদ্ধ করেন তিনি। শুধু স্বপ্ন দেখানোতে সীমাবদ্ধ না থেকে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের জাতীয় কৃষি প্রযুক্তি প্রকল্প থেকে প্রশিক্ষণ প্রদান ও প্রদর্শণী বাস্তবায়নের মাধ্যমে কৃষিতে আগ্রহি করে তোলেন তাকে।

নাদির আহমদ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের নিয়মিত তত্ত্বাবধনে নিত্যনতুন লাগসই ও পরিবেশ বান্ধব প্রযুক্তি গ্রহণের মাধ্যমে ধারাবাহিক সফলতা অর্জন করে আসছেন। প্রায় সারাবছরই নানারকম শাক-সবজি আবাদ করেন তিনি। বছরের বিভিন্ন মৌসুমে নাদির আহমদের চাষকৃত ফসলের মধ্যে রয়েছে– শসা, টমেটো, ফুলকপি, বাঁধাকপি, লাউ, মিষ্টিকুমড়া, বেগুন, করলা, ঝিঙা, চিচিঙা, মূলা ইত্যাদি।

বিগত খরিপ-২/২০১৯ মৌসুমে বানিজ্যিকভাবে ১ বিঘা জমিতে শসা চাষ করে বেশ লাভবান হয়েছেন তিনি। বাম্পার ফলন হওয়ার পাশাপাশি শসার বাজার মূল্যও বেশি পান তিনি। এছাড়াও শসা ক্ষেতে পোকা দমনে জৈবিক পদ্ধতি সেক্স ফেরোমোন ফাঁদ ব্যবহার করে উৎপাদন খরচ অনেকটা কমিয়ে আনেন। নাদির আহমদ ফসলের মোট উৎপাদন খরচ বাদ দিয়েও প্রায় দেড় লক্ষাধিক টাকা লাভ করেন শসা বিক্রি করে।

বিগত খরিপ-২/২০১৯ মৌসুমে চাষকৃত শসা ক্ষেতের পাশে নাদির আহমদ।

শসা ছাড়াও টমেটো, ফুলকপি, বাঁধাকপি, লাউ, মিষ্টিকুমড়া, বেগুন, করলা, ঝিঙা, চিচিঙা ইত্যাদি ফসলেও পোকা দমনে পরিবেশ বান্ধব কৃষি প্রযুক্তি সেক্স ফেরোমোন ফাঁদ ব্যবহার করেন।

এব্যাপারের জানতে চাইলে নাদির আহমদ জানান, সেক্স ফেরোমোন ফাঁদ ব্যবহার করার পূর্বে পোকা দমনের জন্য প্রায় দুই-তিন দিন পর পর কীটনাশক স্প্রে করা লাগতো। কৃষি বিভাগের কর্মকর্তা হাফিজ কাওছার আহমদের পরামর্শে আমি নিয়মিত সেক্স ফেরোমোন ফাঁদ ব্যবহার করে আসছি। সেক্স ফেরোমোন ফাঁদ ব্যবহার করাতে আর্থিকভাবেও যেমন লাভ এবং নিজের স্বাস্থ্য ও পরিবেশের জন্য খুবই উপকারী।

উপসহকারী কৃষি অফিসার হাফিজ কাওছার আহমদ বলেন, নাদির আহমদ একজন তরুন উদ্যোক্তা ও অগ্রসরমান কৃষক। আমরা কৃষি বিভাগ নাদির আহমদের মতো সকল প্রান্তিক কৃষকদের নিত্যনতুন প্রযুক্তি সম্প্রসারণে বদ্ধপরিকর।

নাদির আহমদকে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিতে বিভিন্ন সময়ে উপজেলা কৃষি কর্মকতা কৃষিবিদ শামীমা আক্তার মহোদয়ও সরেজমিনে মাঠে আসেন ও পরিদর্শণ করেন বলে জানান হাফিজ কাওছার আহমদ।

একজন নাদির আহমদের মতো শিক্ষিত বেকার যুবকরা কৃষিতে এগিয়ে আসলে এগিয়ে যাবে কৃষি, এগিয়ে যাবে দেশ। কৃষি প্রধান এদেশ সোনার বাংলায় রূপ নিতে বেশি অপেক্ষা লাগবেনা।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

Powered by Facebook Comments

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com