বাংলাদেশে আধুনিক ধানের জাতগুলির উপযোগিতা পরীক্ষণে সহায়তা করছে AGRRi প্রোগ্রাম

বুধবার, ১৬ মার্চ ২০২২ | ৪:৪২ অপরাহ্ণ | 165 বার

বাংলাদেশে আধুনিক ধানের জাতগুলির উপযোগিতা পরীক্ষণে সহায়তা করছে AGRRi প্রোগ্রাম

বাংলাদেশ একটি উল্লেখযোগ্য কৃষিপ্রধান দেশ, এবং দেশের অর্থনীতি এখনও এর উপর অনেক বেশি নির্ভরশীল; জনসংখ্যার ৭০% প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে কৃষি কাজ করে।
এগ্রিবিজনেস এডুকেশন অ্যান্ড রিসার্চ ইন্টারন্যাশনাল (AERI) কর্তৃক বাংলাদেশে বোরো ২০২১-২০২২ মৌসুমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে আধুনিক ধানের জাতগুলির উপযোগিতা পরীক্ষণ “হেড টু হেড অ্যাডাপটিভ ট্রায়াল (HHAT)” IRRI-BRRI প্রোটোকল অনুযায়ী বাস্তবায়িত হচ্ছে।

 

কৃষকরা উক্ত প্রোগ্রামের সার্বিক সহযোগিতায় এই আধুনিক জাতের ধানগুলি চাষাবাদ করছে। বর্তমানে নিবিড় পরিচর্যা ও দেখভালের মাধ্যমে এগিয়ে যাচ্ছে উক্ত ট্রায়াল গুলো।
চাষাবাদের জন্য প্রয়োজনীয় সহযোগিতা ও গাইডলাইন পেয়ে তারা আনন্দিত । কৃষকরা আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন যে, এভাবে যদি তারা প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা ও সহযোগিতা পায়, তবে সফলতার সহিত উক্ত ধানের জাত গুলোর উপযোগিতা পরীক্ষণ সম্পন্ন করতে তথাপি দেশের খাদ্য উৎপাদন ও ভালো জাত সনাক্ত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবে। অ্যাক্সিলারেটেড জেনেটিক গেইন ইন রাইস (AGRRi) প্রোগ্রামের অধীনে আন্তর্জাতিক ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (IRRI) এর সহযোগিতায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের তত্ত্বাবধানে আধুনিক ধানের উপযোগিতা পরীক্ষণ কার্যক্রম এগিয়ে চলছে।

webnewsdesign.com

 

প্রকল্পের উদ্দেশ্য হল: দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে আধুনিক, উচ্চ ফলনশীল, প্রতিশ্রুতিশীল জাতের ধানের উপযুক্ততা যাচাই করা এবং তথ্য সংগ্রহ করা ; জনপ্রিয় ধানের জাতের তুলনা করা; নির্দিষ্ট অঞ্চলের জন্য উপযুক্ত জাত নির্বাচন করা; মাঠ পর্যায়ে ভালো জাতের দ্রুত সম্প্রসারণ; এবং চাষযোগ্য জাত সম্পর্কে কৃষকদের মতামত সংগ্রহ এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক,ড. জিলহাস আহমেদ জুয়েল, AERI-এর সাথে একত্রে পাহাড়ি এলাকায় ৩০টি ট্রায়াল পরিচালনা করছেন।

 

 

IRRI- BRRI প্রোটোকল অনুসারে বাংলাদেশে AGRRi সিড সিস্টেম টিম ট্রায়াল পরিচালনার জন্য সব ধরনের প্রযুক্তিগত সহায়তা প্রদান করছে, যার মধ্যে সমন্বয়, মাঠ তত্ত্বাবধান এবং প্রয়োজন ভিত্তিক মাঠ সহায়তা, সেইসাথে ট্রায়াল পরিচালনার জন্য অংশীদারকে সহায়তা এবং সহায়তা করছে।
বাংলাদেশ এবং ইরি (IRRI) পাঁচ দশকেরও বেশি সময় ধরে একসঙ্গে কাজ করছে। বাংলাদেশ ছিল ইরি (IRRI) -এর প্রথম বিদেশী আউটরিচ অপারেশনের সাইট। ১৯৬৫ সালে ঢাকার বাইরে সাভার ফার্ম এ (একটি সরকারী দুগ্ধ উৎপাদন)কেন্দ্র , ৩০৩টি ধানের জাত পরীক্ষা করে। দুই বছর পরে ১৯৬৭ সালে প্রথম ব্যাপকভাবে প্রচারিত, উচ্চ-ফলনশীল ধানের জাত, IR8, দেশে চালু হয়।

 

ইরি (IRRI) -এর মতে, গত পাঁচ দশকে বাংলাদেশের চাল উৎপাদন ৩.৬ গুণ বেড়েছে, ১৯৭১ সালে ছিল ১৫ মিলিয়ন টন এবং সেখান থেকে ২০১৯ সালে ৫৪ মিলিয়ন টনে উপনীত হয়েছে, যা বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম। গবেষণা, কৃষি প্রযুক্তি এবং প্রণোদনায় উল্লেখযোগ্য সরকারি বিনিয়োগের কারণে বাংলাদেশ খাদ্যশস্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে।
বাংলাদেশের ১৩৫ মিলিয়ন বাসিন্দা সহ বিশ্বের অর্ধেকেরও বেশি জনসংখ্যার জন্য ভাত একটি মৌলিক খাদ্য। সারা দেশে প্রায় ১৩ মিলিয়ন পরিবার প্রায় ১০.৫ মিলিয়ন হেক্টর জমিতে ধান চাষ করে। মোট চাষকৃত এলাকার প্রায় ৭৫% এবং মোট সেচযুক্ত এলাকার ৮০%-এর বেশি জমিতে ধান চাষ করা হয়। ব্রি (BRRI) ১৯৭০ সালে সমসাময়িক ধানের জাত উদ্ভাবনের লক্ষ্য নিয়ে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল যা সারা বিশ্বে উচ্চ খ্যাতি অর্জন করেছে।

 

AERI দ্বারা আধুনিক ধানের জাতগুলির নিম্নলিখিত “হেড টু হেড অ্যাডাপটিভ ট্রায়াল (HHAT)” বাস্তবায়িত হচ্ছে:
• বঙ্গবন্ধু ধান ১০০
• ব্রি ধান ৭৪
•ব্রি ধান ৮৪
•ব্রি ধান ৮৮
•ব্রি ধান ৯৬
• চাক্কা পাঞ্জা

 

AERI অংশীদারি আইন, ১৯৩২-এর অধীনে রেজিস্ট্রার অফ জয়েন্ট স্টক কোম্পানিজ অ্যান্ড ফার্মস (RJSC) অফিসে যথাযথভাবে নিবন্ধিত সংস্থাগুলির মধ্যে অন্যতম এবং কৃষি মন্ত্রণালয়ের অফিস বীজ শাখায় যথাযথভাবে নিবন্ধিত একটি বীজ ডিলার৷ এই ফার্ম মূলত গবেষণা, কৃষি ব্যবসা, কৃষি, বীজ ও ফসল সুরক্ষা সহ অনেক কিছুতে গতিশীলতা আনতে ও মূল্যায়ন করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments

Powered by Facebook Comments

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com